Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের ‘ইউ-টার্ন’

উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের ‘ইউ-টার্ন’


যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার আলোচনায় বসার ব্যাপারে ওয়াশিংটন ‘ইউ-টার্ন’ দিয়েছে। দেশটি উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনার বিষয়ে এবার শর্ত আরোপ করেছে। শর্ত হিসেবে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন বলেছেন, যেকোনো আলোচনার আগে উত্তর কোরিয়াকে স্থায়ীভাবে পরমাণু অস্ত্র ও ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা বন্ধ করতে হবে। এদিকে, উত্তর কোরিয়া বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রের হুমকি মোকাবেলায় আত্মরক্ষার লক্ষ্যে পরমাণু অস্ত্র ও ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করেছে দেশটি। সংবাদসূত্র : বিবিসি, রয়টার্স, পার্স টুডে
আন্ত্মর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনার টিলারসনের এই বক্তব্যকে তারই দেয়া আগের বক্তব্যের সম্পূর্ণ বিপরীত বলে মনে করা হচ্ছে। গত সপ্তাহে তিনি বলেছিলেন, ‘উত্তর কোরিয়া যখনই চাইবে, তখনই দেশটির সঙ্গে যেকোনো বিষয়ে আলোচনায় বসতে প্রস্তুত রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।’

টিলারসনের ওই বক্তব্যকে চীন ও রাশিয়া স্বাগত জানিয়েছিল। কিন্তু সেই বক্তব্যের কয়েক ঘণ্টা পর হোয়াইট হাউস ভিন্নমত প্রচার করেছিল। হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিব সারা স্যান্ডার্স এক বিবৃতিতে বলেছিলেন, উত্তর কোরিয়ার ব্যাপারে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবর্তন আসেনি। তিনি দাবি করেন, পিয়ংইয়ং শুধু জাপান, চীন ও দক্ষিণ কোরিয়ার জন্য হুমকি সৃষ্টি করছে না, সেইসঙ্গে দেশটি গোটা বিশ্বের নিরাপত্তাকে বিপন্ন করে তুলেছে।
শেষ পর্যন্ত্ম মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী টিলারসন শুক্রবার নিরাপত্তা পরিষদে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তার আগের মন্ত্মব্যের বিপরীতে গিয়ে বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র আলোচনা করতে রাজি থাকলেও উত্তর কোরিয়ার শর্তের কাছে নতি স্বীকার করবে না।’
চলতি বছর উত্তর কোরিয়া বেশ কিছু পরমাণু অস্ত্র ও ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে। ওয়াশিংটন পিয়ংইয়ংকে সমরাস্ত্র পরীক্ষা বন্ধ করার আহ্বান জানালেও উত্তর কোরিয়া বলছে, যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্র দেশগুলোর বিদ্বেষ নীতি বন্ধ না হলে দেশটি এ ধরনের পরীক্ষা চালিয়ে যাবে।
পরমাণু অস্ত্রের জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে
জবাবদিহি করতে হবে: এদিকে, উত্তর কোরিয়া বলেছে, পরমাণু অস্ত্র তৈরির জন্য যদি কাউকে জবাবদিহি করতে হয়, তাহলে সে দেশটি যুক্তরাষ্ট্র; উত্তর কোরিয়া নয়। সেইসঙ্গে আরও বলেছে, ওয়াশিংটনের অব্যাহত হুমকি মোকাবেলায় আত্মরক্ষার জন্যই তারা পরমাণু অস্ত্র ও ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করেছে। আর এসব অস্ত্র বিশ্বের কোনো দেশের জন্য হুমকি সৃষ্টি করছে না।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন