Breaking News
Home / শিক্ষা / কুবিতে ৪ মাসেই বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে ফাটল

কুবিতে ৪ মাসেই বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে ফাটল

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বল্প জায়গায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপনের মাত্র চার মাসের মাথায় এতে ফাটল দেখা যায়। অথচ ভাস্কর্যে ফাটল দেখা যাওয়ায় পূর্ব অনুমতি ছাড়াই অব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে নামমাত্র মেরামতের কাজ করা হয়েছে। আবার ফাটল মেরামত সংক্রান্ত কোন তথ্য জানে না প্রকৌশল কার্যালয়।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে স্থাপিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যে ফাটল দেখা দিয়েছে এমন সংবাদ গেল সপ্তাহে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর ৬ জানুয়ারি শনিবার রাতে ভাস্কর্যটি মেরামতের জন্য লোক পাঠায় ভাস্কর মৃণাল হক। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ জানে না কে বা কারা এটি মেরামত করছে।

শনিবার রাতে শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসানসহ বেশ কয়েকজন শিক্ষক ভাস্কর্য মেরামত চলাকালে রুবেল হোসাইন নামের এক ব্যক্তিকে আটক করে। রুবেল হোসাইন মৃণাল হকের লোক বলে এ সময় পরিচয় দেন। তবে মেরামতের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল কার্যালয়সহ সংশ্লিষ্ঠ কোন কর্তৃপক্ষই জানে না বলে জানা যায়। অব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে পুটিং (কংক্রিটে লাগানো হয় এমন শক্ত আঠা) জাতীয় উপাদান দিয়ে ফাটলগুলো কোনমতে আটকে দেয়া হয়। তবে ভাস্কর্যে পুটিং লাগানো হলেও পর্যাপ্ত কাজ না করে রং ব্যবহার না করায় পুটিং গুলো বেরিয়ে আসছে।

এদিকে রুবেল হোসাইন নামের আটক ব্যক্তির কাছ থেকে লিখিত নিয়ে রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজ্রিস্টার মজিবুর রহমান মজুমদার তাকে ছেড়ে দেন।

শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান বলেন, ‘মৃণাল হক তৎকালীন উপাচার্যের সহয়তায় দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে ভাস্কর্যটি নির্মাণ করেছেন। ভাস্কর্য নির্মাণে যারাই দুর্নীতিতে জড়িত তাদের শাস্তির আওতায় আনা হোক।’

এদিকে মৃণাল হক বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে মেরামতের জন্য লোক পাঠিয়েছেন বললেও ভিন্ন কথা বলেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী ও রেজিস্ট্রার। প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনুরোধ করায় ভাস্কর্য মেরামতের জন্য লোক পাঠানো হয়েছিল বলে জানান ভাস্কর মৃণাল হক।

তবে রেজিস্ট্রার মো: মজিবুর রহমান মজুমদার বলেন. ‘মৃণাল হক বিশ্ববিদ্যালয়ের কারো সাথে যোগাযোগ না করে লোক পাঠিয়ে দায়সারাভাবে কাজ করেছেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর সাথে প্রতারণা করছেন।’

উল্লেখ্য, জাতির জনকের ভাস্কর্য নির্মাণে দুর্নীতি হচ্ছে শিক্ষকদের এমন অভিযোগ তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আলী আশরাফ আমলে না নিয়ে ভাস্কর্যটি তড়িঘড়ি করে স্থাপন করেন। গত মার্চে কাজ শুরু করে ২৫ মে ভাস্কর্যটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে সংকুচিত স্থানে স্থাপন করা হয়। তবে নির্ধারিত নকশায় ভাস্কর্যটি না হওয়ায় গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশ হলে বিশ্ববিদ্যালয় জুড়ে সমালোচনার মুখে ভাস্কর্যটিকে সরিয়ে আগস্টে ফের নতুনভাবে ভাস্কর্যটি স্থাপন করা হয়। ভাস্কর্য নির্মাণের শুরু থেকেই দুর্নীতি হয়েছে এমন অভিযোগে শিক্ষক সমিতি ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের নেতারা অভিযোগ করেন। দুর্নীতির বিষয়ে তদন্ত কমিটি গঠনের দাবিতে শিক্ষক সমিতির প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং বঙ্গবন্ধু পরিষদের সদস্য মো: আসাদুজ্জামান গত ১০ আগস্ট থেকে ২৪ আগস্ট পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের পাদদেশে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন