Breaking News
Home / বিজ্ঞান-প্রযুক্তি / তথ্য-প্রযুক্তি / আলোচিত অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার

আলোচিত অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার

Anti Virus Software
অ্যান্টিভাইরাস ব্যতীত এই সময়ে কম্পিউটার ব্যবহারের কথা ভাবা যায় না। অনেক ব্র্যান্ড রয়েছে যারা অ্যান্টিভাইরাস তৈরি করে এবং ইন্টারনেট সিকিউরিটি, পিসি টিউনআপসহ বিভিন্ন সুবিধা প্রদান করে থাকে। ইউজার রেটিং এবং ব্যবহারের দিক দিয়ে ২০১৭-১৮ সালের সেরা ১৫টি অ্যান্টিভাইরাসের তালিকা দেয়া হলো :

১.SET NOD32 Antivirus 8 : সেরা তালিকার পনের নাম্বারে রয়েছে ইসেট নড ৩২ অ্যান্টিভাইরাস। এই অ্যান্টিভাইরাস পণ্যটিতে কিছু বাড়তি সুবিধা থাকলেও আশ্চর্যজনকভাবে এন্টি-স্প্যাম ফিচার নেই। সফটওয়্যারটির ব্যবহার সহজ এবং পিসির অন্যান্য কার্যক্রমের ওপর কোনো প্রভাব ফেলে না বা পিসির গতি কমিয়ে দেয় না। প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে এটি অন্যদের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী।

২. Webroot Internet Security Plus 2018 : ওয়েবরম্নট ইন্টারনেট সিকিউরিটি পস্নাসের কার্যক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন থাকলেও এটি ১৪ নাম্বারে স্থান করে নিয়েছে। নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের দাবি অনুযায়ী ওয়েবরম্নট খুব দ্রম্নত স্ক্যান করতে পারে এবং কম্পিউটারের কার্যক্ষমতাকে দ্রম্নতগামী করে।

৩. Panda Global Protection 2018 : বিভিন্ন ডিভাইসের যেমন পিসি, ম্যাক কিংবা অ্যান্ড্রয়েডের জন্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চাইলে পান্ডা গেস্নাবাল সিকিউরিটি একটি ভালো অপশন। অ্যান্টিভাইরাস টেস্টে ভালো স্কোর রয়েছে পান্ডার ঝুলিতে। অন্য অ্যান্টিভাইরাসের তুলনায় এর দামও কম এবং ব্যবহার খুবই সহজ।

৪. G-Data Internet Security 2018 : অপেক্ষাকৃত কম মূল্য, স্বল্প ইন্টারনেট খরচ এবং ফুল ফিচারড সিকিউরিটির জন্য জি-ডাটা ইন্টারনেট সিকিউরিটির অবস্থান বারো নাম্বারে। এর কার্যক্ষমতা পুরোপুরি সফল বলা যায় না। জি-ডাটা ব্যবহারকারীরা এর ইন্টারনেট সিকিউরিটি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। ওয়েব থ্রেট ধরতে এটি ততটা কর্মক্ষম নয়। স্বল্প মূল্যের জন্যই মূলত এর চাহিদা বেশি।

৫. McAfee LiveSafe 2018 : পিসি, ম্যাক কিংবা অ্যান্ড্রয়েড জাতীয় যে কোনো দুটি ডিভাইসের জন্য ম্যাকাফি লাইভসেফ ২০১৮ একটি সাশ্রয়ী অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার। ম্যাকাফির প্রিমিয়াম ভার্সনে মোবাইল চুরি ঠেকানোর জন্য এন্টি-থেফট ফিচার যুক্ত করেছে। এর ভাইরাস শনাক্তকরণের ক্ষমতা একেবারে ফেলে দেয়ার মতো নয়। তাই ম্যাকাফির স্থান ১১-তে।

৬. AVG Free Antivirus 2018 : সেরা দশের শুরম্নতেই এভিজি। এভিজি ফ্রি অ্যান্টিভাইরাস ২০১৮ ফ্রি অ্যান্টিভাইরাসগুলোর মধ্যে অন্যতম। এর কি-প্রোটেকশন ফিচারের জন্য এভিজি বিখ্যাত। তবে এর ফ্রি ভার্সনের ক্ষেত্রে সঠিক প্রোডাক্টটি বাছাই করতে হবে। ‘এভিজি ইন্টারনেট সিকিউরিটি ২০১৮’ নামে এর একটি প্রিমিয়াম ভার্সন রয়েছে। এর সঙ্গে পিসির গতি সমুন্নত রাখতে রয়েছে আরেকটি সহযোগী প্রিমিয়াম অ্যাপ ‘এভিজি পিসি টিউনআপ’। ইন্টারনেট সিকিউরিটি, ভাইরাস প্রটেকশন, ফ্ল্যাশ ড্রাইভ প্রটেকশনের জন্য এভিজি সেরাদের অন্যতম। পিসির পাশাপাশি এভিজি অ্যান্ড্রয়েড সিকিউরিটিও প্রদান করে।

৭. Avast Free Antivirus 2018 : ফ্রি অ্যান্টিভাইরাস প্রোডাক্টগুলোর মধ্যে এভাস্ট ফ্রি অ্যান্টিভাইরাসের সুনাম বেশি। প্রিমিয়াম ভার্সনের বাইরেও এভাস্টের ফ্রি ভার্সনের সিকিউরিটি সিস্টেম বিস্ময়কর। পিসির পাশাপাশি অ্যান্ড্রয়েডের জন্যও রয়েছে এর একটি দারম্নণ ফ্রি ভার্সন। যা এন্টি-থেফট সুবিধা, অ্যাপস অ্যানালাইসিসসহ বেশকিছু সুবিধা দেয়। তবে পরিপূর্ণ সুবিধার জন্য এভাস্টের প্রিমিয়াম ভার্সন কিনতে হবে।

৮. Panda Free Antivirus 2018 : পান্ডা ফ্রি অ্যান্টিভাইরাসের প্রিমিয়াম ভার্সনের জনপ্রিয়তাকে ছাপিয়ের্ যাংকিংয়ের আট নাম্বারে অবস্থান করছে। পান্ডা একটি সামনের সারির ফ্রি অ্যান্টিভাইরাস যা ইনিশিয়াল এবং ফলোআপ স্ক্যানের ডাবল সুবিধা প্রদান করবে। কিন্তু ফ্রি ভার্সনটির প্রটেকশন লেভেল প্রিমিয়ামের তুলনায় কিছুটা দুর্বল। যদিও সহজ ব্যবহার এবং তুলনামূলক ভালো কার্যক্ষমতার জন্য এটি জনপ্রিয়।

৯. Qihoo 360 Total Security 2018 : বিনামূল্যে অ্যান্টিভাইরাসের পাশাপাশি ওয়েব সিকিউরিটি, পিসি ক্লিনারসহ কিছু বাড়তি সুবিধা পেতে হলে কুইহো-র ৩৬০ টোটাল সিকিউরিটি ২০১৮-এর তুলনা নেই। এটি খুবই সহজ ব্যবহারযোগ্য, তুলনামূলক কার্যক্ষমতা ভালো। এই অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যারটি পিসির গতি কমিয়ে দেয় না। অন্যান্য অ্যাপের কার্যক্ষমতার ওপর কোনো প্রভাব ফেলে না। ৩৬০ টোটাল সিকিউরিটির একটি অ্যান্ড্রয়েড ভার্সন ও রয়েছে যা সমান জনপ্রিয়।

১০. Trend Micro Internet Security 2018 : স্বল্পমূল্য এবং ভালো পারফরমেন্সের জন্য ট্রেন্ড মাইক্রো ইন্টারনেট সিকিউরিটি একটি ভালো পছন্দ। ট্রেন্ড ইন্টারনেট সিকিউরিটির কিছু ভালো ফিচার রয়েছে যা একে প্রতিযোগিতায় ছয় নাম্বারে স্থান দিয়েছে।

১১.BitDefender Antivirus Free Edition 2018 : বিটডিফেন্ডার অ্যান্টিভাইরাস সেরা পাঁচে অবস্থান করছে এর স্বয়ংক্রিয় কার্যক্ষমতার জন্য। এটি অটোম্যাটিক স্ক্যানের পাশাপাশি ম্যানুয়েল স্ক্যানও করতে পারে। বিটডিফেন্ডারের ব্যবহার কিছুটা জটিল হওয়ায় অনেকে ব্যবহার করতে চান না। তবু পিসির সিকিউরিটির জন্য এই ফ্রি এডিশনটির রেটিং অনেক উঁচুমানের।

১২. Avira Free Antivirus 2018: এভাইরা অ্যান্টিভাইরাসের ফ্রি ভার্সনটি রেটিংয়ে চার নাম্বারে স্থান করে নিয়েছে। নামি অ্যান্টিভাইরাস ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে এভাইরা অন্যতম। এর ভাইরাস সিকিউরিটি টেস্টের ফলাফল চমৎকার। এভাইরা বিনামূল্যে দারম্নণ সব ফিচার যুক্ত করেছে তাদের ইন্টারফেসে। এর ইন্টারফেসটিও সহজবোধ্য এবং সহজ ব্যবহারযোগ্য।

১৩. Kaspersky Total Security 2018 : রেটিংয়ে তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে নামকরা অ্যান্টিভাইরাস সেবাদাতা ক্যাসপারস্কি। ভাইরাস ডিটেকশন এবং ইন্টারনেট সিকিউরিটির ক্ষেত্রে ক্যাসপারস্কি টোটাল সিকিউরিটি অনন্য। পিসির পাশাপাশি ক্যাসপারস্কি প্রিমিয়াম মোবাইল সিকিউরিটিও প্রদান করে। এর টেকনিক্যাল ফল্ট নেই বললেই চলে। ভাইরাস প্রটেকশন টেস্টে ভালো মার্ক পেয়েছে ক্যাসপারস্কি। তবে পিসির গতি কমিয়ে দেয় বলে এর কিছুটা দুর্নাম রয়েছে।

১৪. Bitdefender Internet Security 2018 :র্ যাংকিংয়ে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে বিটডিফেন্ডারের প্রিমিয়াম ভার্সন ‘বিটডিফেন্ডার ইন্টারনেট সিকউরিটি’। এর একটি দারম্নণ অ্যান্টিভাইরাস সু্যইট রয়েছে। চমৎকার ইন্টারফেস, সহজ ব্যবহারের জন্য জনপ্রিয়। ম্যালওয়্যারের বিরম্নদ্ধে বিটডিফেন্ডার মহাশক্তিশালী। এটি কখনো ফলস রিপোর্ট বা ডিটেকশন দেয় না। অন্য অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যারগুলোর মতো বাড়তি সুবিধার জন্য কোনো বাড়তি অর্থও দাবি করে না।

১৫. Symantec Norton Security with Backup : যাংকিংয়ে প্রথম স্থানটি দখল করেছে ‘সাইমেন্টিক করপোরেশনের নর্টন সিকিউরিটি উইথ ব্যাকআপ’। এটি আকর্ষণীয় মূল্যে দশটি লাইসেন্স এ সুবিধা দেবে। এর ভাইরাস প্রটেকশনস টেস্টের ফলাফল সবাইকে ছাড়িয়ে। সেই সঙ্গে রয়েছে ক্লাউড সার্ভিস। ম্যালওয়্যারের বিরম্নদ্ধে একেবারে ফার্স্টক্লাস ফার্স্ট। বেশিরভাগ প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা অ্যান্টিভাইরাস হিসেবে নর্টনকে রিকমেন্ড করেন। নর্টন পিসি স্স্নো করে না কিংবা অন্য সফটওয়্যারের কাজে প্রভাব ফেলে না। তাই নর্টন-ই সেরা।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন