Breaking News
Home / বাংলাদেশ / খালেদার জামিনে প্রমাণিত ‘আদালত স্বাধীন’: আ.লীগ

খালেদার জামিনে প্রমাণিত ‘আদালত স্বাধীন’: আ.লীগ


জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিচারিক আদালতে সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে উচ্চ আদালত চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেয়ায় প্রমাণিত হয়েছে দেশের বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন। স্বাধীন বিচার বিভাগের ওপর সরকারের কোনও হস্তক্ষেপ নেই। খালেদা জিয়ার জামিন সংক্রান্ত হাইকোর্টের আদেশের পর পরই তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এমন দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। তবে দলের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

খালেদা জিয়ার জামিন আদেশের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানতে যোগাযোগ করা হলে আওয়ামী লীগ নেতারা ব্রেকিংনিউজকে বলেন, আদালতের ওপর সরকারের কোনও ধরনের হস্তক্ষেপ নেই। আদালতের ওপর সরকারের হস্তক্ষেপ থাকলে এই মামলায় আদালত থেকে বেগম খালেদা জিয়া কখনোই জামিন পেতেন না। এতে প্রমাণিত হয়েছে যে আদালত স্বাধীন এবং স্বচ্ছভাবে দেশে বিচার কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। এই মামলা বর্তমান সরকারের আমলে হয়নি বরং হয়েছে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে। তাই এই মামলার সাথে বা বিচার কার্যক্রমের সাথে সরকারের কোনও ধরনের হস্তক্ষেপ বা সংশ্লিষ্টতা নেই বলেও দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের নেতারা।

অন্যদিকে এ মামলার রায়কে নিয়ে বিচার বিভাগকে প্রশ্নবিদ্ধ করে সম্প্রতি বিএনপি নেতারা মিথ্যার ফুলঝুড়ি দিয়ে দেশের জনগণকে বিভ্রান্ত করেছে বলেও দাবি করেছেন ক্ষমতাসীন দলটির নেতারা। উচ্চ আদালতে খালেদা জিয়ার চার মাসের জামিনের মাধ্যমে বিএনপি নেতাদের অভিযোগ মিথ্যা এবং বানোয়াট প্রমাণিত হয়েছে বলেও দাবি করেন তারা।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘খালেদা জিয়ার অন্তর্বর্তীকালীন জামিন এর মাধ্যমে প্রমাণ হলো আদালত স্বাধীনভাবে কাজ করছে। এখানে সরকারের কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ নাই। খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠানোর ক্ষেত্রেও সরকারের কোনো হস্তক্ষেপ ছিল না। আজকের জামিনের ব্যাপারেও আলাদা কোনো হস্তক্ষেপ নাই। সুতরাং বাংলাদেশে বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে কাজ করছে- খালেদা জিয়ার জামিন আদেশ তারই একটি উৎকৃষ্ট প্রমাণ।’

আওয়ামী লীগের অন্যতম মুখপাত্র এবং দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘খালেদার জামিন এর মাধ্যমে আবারও প্রমাণিত হয়েছে আদালত স্বাধীন ও স্বাধীনভাবে কাজ করছে। আদালতে যদি সরকারের হস্তক্ষেপ থাকতো তাহলে কিভাবে খালেদা জিয়ার জামিন হয়? প্রথমত এই মামলার পেছনে সরকারের কোনো হাত নেই। এটি দুর্নীতি দমন কমিশনের করা মামলা। এমনকি দুদক যখন মামলা করে তখন আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায়ও ছিল না, ছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকার।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই মামলায় নিম্ন আদালত এ আইনের ভিত্তিতে খালেদা জিয়ার যে শাস্তি সেটি যেমন প্রমাণিত সেই সাথে আজকের হাইকোর্টের খালেদা জিয়ার জামিন এর মাধ্যমে আবারও প্রমাণিত হয়েছে বাংলাদেশের বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে কাজ করছেন।’

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘খালেদা জিয়ার শাস্তি আদালত দিয়েছে। আবার আদালতই জামিন দিয়েছে। বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন। এখানে আমাদের তো বলার কিছু নাই।’

বিভিন্ন সময়ে বিএনপি নেতাদের অভিযোগ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘তারা তো অভিযোগ অভিযোগ আর অভিযোগ করতেই থাকে। অভিযোগের বাইরে তাদের কোনো কথাই নেই। সকালে একটা বিকেলে বলে আরেকটা। মিথ্যার ফুলঝুড়ি দিয়ে দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করতেই থাকে তারা। বিএনপি যে সত্য কথা বলে না এটা প্রমাণ হচ্ছে। এমনকি তারা যে সত্য কথা বলার চেষ্টাও করে না তারও প্রমাণ হচ্ছে।’ মিথ্যা বলা বিএনপি নেতাদের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে বলেও এসময় মন্তব্য করেন তিনি।

আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী মো. আবদুস সবুর ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘বর্তমান সরকারের আমলে আদালতের ওপর কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ হয়নি। আদালতের ওপর যদি হস্তক্ষেপ হতো তাহলে আজকে খালেদা জিয়ার জামিন হতো না। আজকে খালেদা জিয়ার জামিন আদেশে আরও একবার প্রমাণ হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে দেশের বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে কাজ করছেন।’

এদিকে আদালতের আদেশের পর পরই এক প্রতিক্রিয়ায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বিচার বিভাগ যে স্বাধীন, সরকার যে বিচার বিভাগের ওপর কোনও ধরনের হস্তক্ষেপ করে না সেটি আজকের এই আদেশে আবারও প্রমাণ হলো।’

প্রসঙ্গত, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া কারাবন্দি থাকার ৩২ দিনের মাথায় সোমবার (১২ মার্চ) দুপুর সোয়া ২টায় বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ খালেদা জিয়ার চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেয়। ফলে অন্য কোনও মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো না হলে খালেদা জিয়ার মুক্তি পেতে আর কোনও বাধা নেই।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন