Breaking News
Home / বাংলাদেশ / নববর্ষে সোনার বাংলা গড়ার প্রতিজ্ঞা প্রধানমন্ত্রীর

নববর্ষে সোনার বাংলা গড়ার প্রতিজ্ঞা প্রধানমন্ত্রীর


নতুন বছরে জাতীয় জীবনে শুভ ফলের প্রত্যাশার কথা জানিয়ে নববর্ষে সোনার বাংলা গড়ার প্রতিজ্ঞা ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার (১৫ এপ্রিল) ১৪২৫ বঙ্গাব্দের প্রথম দিন গণভবনে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়ের পর প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তৃতায় এ কথা বলেন। এসময় তিনি দেশে ও দেশের বাইরে সকল বাঙালিকে বাংলা নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই নতুন বছর আমাদের জন্য শুভ ফল নিয়ে আসুক, যেন বাংলাদেশকে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা হিসেবে গড়তে পারি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলব; এটাই নববর্ষে আমাদের প্রতিজ্ঞা।’

বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির ওপর আঘাত হানতে পারে- তেমন ‘অপশক্তি’ যেন আর কখনো রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসতে না পরে, সে বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকারও আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে কখনও যেন আর এই ধরনের অশুভ শক্তি না আসে, যারা আমাদের ঐতিহ্যের ওপর আঘাত করবে, ভাষার ওপর আঘাত করবে, সংস্কৃতির ওপর আঘাত করবে, আমাদের নিজেদের অস্তিত্বের ওপর আঘাত করবে।’

বিএনপির প্রতি ইঙ্গিত করে ও বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথের ১৪০০ সাল কবিতাটির কথা স্মরণ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তারা (বিএনপি) না বোঝে রবীন্দ্রনাথ, না বোঝে নজরুল ইসলাম। তাদের মনে তো শুধু পেয়ারে পাকিস্তান।’

বর্ষবরণের সর্বজনীনতার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘এই উৎসবটা ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলে একত্রে উদযাপন করে। আসলে বাংলা নববর্ষ বাঙালিদের জন্য। হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, মুসলমান- সকলে সমানভাবে এটা উদযাপন করে। পুরনো বছরের সমস্ত হিসাব নিকাশ সম্পন্ন করে নতুনভাবে আবার ব্যবসা-বাণিজ্য শুরু করা, হালখাতা খোলা, নতুনভাবে আবার যাত্রা শুরু করা; এটাই ছিল একটা ঐতিহ্য।’

এর আগে সকালে নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য প্রধানমন্ত্রী গণভবনের ব্যাংকোয়েট হলে এলে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা ফুল দিয়ে তাঁকে শুভেচ্ছা জানান। এর পর সবাই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। এসময় বাঙালির উৎসবের খাবার জিলাপি, লাড্ডু, খই, মুড়ি, বাতাসা আর মিষ্টান্ন দিয়ে অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয়।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন