Breaking News
Home / বিজ্ঞান-প্রযুক্তি / তথ্য-প্রযুক্তি / ঘুচে যাচ্ছে অফনেট-অননেট যন্ত্রণা

ঘুচে যাচ্ছে অফনেট-অননেট যন্ত্রণা


অপারেটর ভিন্ন হলেও মোবাইল ফোনের সব কলের সর্বনিম্ন সীমা এক রেটে হচ্ছে। উঠে যাচ্ছে কলরেটের সর্বোচ্চ সীমা। একই অপারেটরের নম্বরে (অননেট) কিংবা একটি অপারেটর হতে অন্য অপারেটরের নম্বরে কল (অফনেট কল) করার ক্ষেত্রে বর্তমানে চালু অননেটে ২৫ পয়সা এবং অফনেটে ৬০ পয়সার জাগায় সর্বনিম্ন সমান কলরেট নির্ধারণ করা হচ্ছে ৫০ পয়সা।

এ বিষয়ে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার জানিয়েছেন, অফনেট এবং অননেট কলে এক রেট করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এতে গ্রাহক স্বস্তি পাবে, কথা বলার খরচ কমবে। এছাড়া বড় অপারেটরগুলো একতরফা সুবিধা নিতে পারবে না। অন্যদিকে ছোট অপারেটর থেকে বড় অপারেটরে কল করার খরচও কমে আসবে।

তিনি বলেন, অননেট অফনেটে আলাদা আলাদা কলরেট বাংলাদেশ ছাড়া পৃথিবীর কোনো দেশেই নেই। এক অপারেটর হতে আরেক অপারেটরে কলের জন্য ইন্টার কানেকশন এক্সচেইঞ্জ (আইসিএক্স) সিস্টেমও নেই। তাই এসব ক্ষেত্রে সমতা বিধান করা হচ্ছে।

এমএনপি চালু হলে অননেট ও অফনেটের আলাদা কলরেটের কারণে যেন বাজারে অসম প্রতিযোগিতা তৈরি না হয় সে জন্য আগে ভাগেই এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে গ্রামীণফোনের অননেট কলের গড় রেট ৪৪ পয়সা, অফনেট তা এক টাকা ৫৬ পয়সা।

অন্যদিকে রবির অননেটে ৩৯ পয়সা, অফনেটে ৯১ পয়সা এবং বাংলালিংকের অননেট ৩৯ ও অফনেটে ৮৯ পয়সা।

এছাড়া রাষ্ট্রীয় অপারেটর টেলিটকের অননেট রেট ৩৪ পয়সা ও অফনেট ৮৬ পয়সা।

সূত্রমতে, গ্রাহক সংখ্যার কারণে গ্রামীণফোনের প্রায় ৭০ শতাংশ কল অননেট হয়। বিপরীতে সবচেয় কম গ্রাহকের অপারেটর টেলিটকের অননেট কল হয় মাত্র ২০ শতাংশ। এতে অপারেটরটির ৮০ শতাংশ কল অফনেটে হওয়ায় টেলিটক অননেটে কলরেট কম করলেও সব কল মিলে গ্রাহককে অধিক পয়সা গুণতে হয়।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন