Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস উদ্বোধন : সংঘর্ষে নিহত ৫৫

জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস উদ্বোধন : সংঘর্ষে নিহত ৫৫


জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস উদ্বোধনকে ঘিরে গাজা সীমান্তে ইসলায়েলি সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে ৫৫ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত ২ হাজার সাত শ জন। ২০১৪ সালেরর পর ফিলিস্তিন ও ইসরায়েলের মধ্যে সংঘর্ষে এটাই সর্বোচ্চ হতাহতের ঘটনা। ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, নিহত ৫৫ জনের মধ্যে অন্তত অনেকের বয়স ১৮ বছরের নিচে এবং তাদের মধ্যে নারীও রয়েছে। ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর নির্দেশে দেশটির সেনাবাহিনী এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে বলে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। জেরুজালেমে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস স্থাপনের ঘোষণা দেওয়ার পর এই সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। এরপর সমগ্র ফিলিস্তিন জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে আন্দোলনের ঢেউ। এরপর সীমান্তের কাঁটাতারের পাশে অবস্থান নেওয়া ফিলিস্তিনি নাগরিকদের লক্ষ্য করে অপর পাশ থেকে গুলিবর্ষণ করে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী। ইসরায়েল সেনাবাহিনীর বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেখানে প্রায় ৩৫ হাজার ফিলিস্তিনি নাগরিক ‘সংঘর্ষে’ যোগ দেয়। এ ছাড়া ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ফিলিস্তিনি নাগরিকরা সীমান্তে জড়ো হয়ে ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর দিকে পাথর নিক্ষেপ করলে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী তাদের দিকে গুলি, কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। ১৯৪৮ সালে নিজ ভূমি থেকে বিতাড়িত ফিলিস্তিনি নাগরিকদের সপ্তাহব্যাপী প্রতিবাদের কর্মসূচির পর এই সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস তেল আবিব থেকে জেরুজালেমে স্থানান্তর করার ফলে এই আন্দোলন তীব্র আকার ধারণ করে। ১৫ মে ‘নাকাব’ বা ‘দুর্যোগ’ ডে (১৯৪৮ সালের যেদিনটিতে ইসরায়েল নামের রাষ্ট্রটির জন্য হয়)-কে সামনে রেখে এই সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়েছে। যেদিন কয়েক হাজার ফিলিস্তিনি নাগরিককে তাদের নিজ ভূমি থেকে উচ্ছেদ করা হয়। সোমবার সকাল থেকে বিক্ষুব্ধ ফিলিস্তিনি নাগরিকরা ইসরায়েল সীমান্তে জড়ো হয়ে সুরক্ষিত সীমানা প্রাচীর পেরিয়ে তাদের ভূখণ্ড ইসরায়েলি দখলমুক্ত করার চেষ্টা করলে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী তাদের ওপর হামলা করে।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন