Breaking News
Home / বাংলাদেশ / নিবন্ধন পাচ্ছে না রাজনৈতিকদল এনডিপি

নিবন্ধন পাচ্ছে না রাজনৈতিকদল এনডিপি

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নিবন্ধন পাচ্ছে না রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এনডিপি)। সোমবার (২১ মে) বিষয়টি জানিয়ে দলটির চেয়ারম্যানকে চিঠি দিয়েছেন ইসির উপ-সচিব মো. আব্দুল হালিম খান।  এনডিপির চেয়ারম্যানের কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়, দাখিলকৃত কাগজপত্র পর্যালোচনায় দেখা যায়, এনডিপির প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত সংসদ সদস্য পরবর্তীতে অন্য নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলে যোগদান করে উক্ত রাজনৈতিক দল হতে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।  প্রাপ্ত নথিপত্রাদি পরীক্ষা করে দেখা যায়, ১৯৯৬ সালে এবং ২০০১ সালে এনডিপি নামে কোন দল জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেনি।  এনডিপি’র দাখিল করা গঠনতন্ত্রটি ২০০৮ সালে ছাপানো হয়েছে। দলটি এর পূর্বের কোনো গঠনতন্ত্র দাখিল করেনি তাই ধরে নেয়া যায় যে, ২০০৮ সালের পূর্বে দলটি কার্যকর ছিল না বিধায় এর গঠনতন্ত্র বা দলের সভা বা কোনো কাউন্সিল অনুষ্ঠানের বিষয়ও ছিল না।  অর্থাৎ ১৯৯৬ সালে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর হতে দলটির দলীয় কার্যক্রমে ধারাবাহিকতা নেই এবং এই আবেদনকারী দলটিই ১৯৯১ সালের এনডিপি নামীয় দলটি কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যায় না।  দাবি অনুযায়ী রাজনৈতিক দল নিবন্ধন বিধিমালা, ২০০৮ এর বিধি ৬ এর (ঞ) (অ) এ বর্ণিত শর্ত পূরণের বিষয়টি প্রযোজ্য নয় বলে প্রতীয়মান হয়। এছাড়া ১৯৯৬ সালে অনুষ্ঠিত ৬ষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর হতে দলটির দলীয় কার্যক্রমের ধারাবাহিকতা না থাকায় আবেদনটি মাননীয় কমিশন কর্তৃক নামঞ্জুর করা হয়েছে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়।  জানা যায়, এর আগে ১২ মার্চ এনডিপির নিবন্ধনের বিষয়টি বিবেচনা করতে ইসিকে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। এনডিপি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কেন অংশ নিতে পারবে না মর্মে জারি করা রুল চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করে সেদিন এ রায় ঘোষণা করেন বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি জাফর আহমেদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ। ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে আবেদন করে এনডিপি। কিন্তু নির্বাচন কমিশন তাদেরকে নির্বাচনে অংশ না নিতে আদেশ দেয়। সংগঠনটির চেয়ারম্যান খন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা সে আদেশকে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন, রিট পিটিশন নং- ৯৯৪/২০১৮। আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করে সিনিয়র অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান ও অ্যাডভোকেট জিয়াউদ্দিন।  অপরদিকে নির্বাচন কমিশনের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট তৌহিদুল ইসলাম।

About বার্তা সম্পাদক

মন্তব্য করুন