মঙ্গলবার , নভেম্বর 19 2019
Breaking News
Home / আন্তর্জাতিক / বার্মার সেনারা রোহিঙ্গা গণহত্যায় জড়িত: জাতিসংঘ

বার্মার সেনারা রোহিঙ্গা গণহত্যায় জড়িত: জাতিসংঘ


রোহিঙ্গা মুসলমান ও অন্যান্য জাতিগত সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে গণহত্যা ও যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত মিয়ানমারের সিনিয়র সামরিক কর্মকর্তাদেরকে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে জাতিসংঘ গঠিত স্বাধীন আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন।

২০১৭ সালের মার্চ মাসে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল কর্তৃক এটি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল।

মিশনটি রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনীর গৃহীত পদক্ষেপে সন্দেহাতীতভাবে আন্তর্জাতিক আইনের অধীনে গুরুতর অপরাধের প্রমাণ পেয়েছে।

সোমবার (২৭ আগস্ট) জেনেভায় অনুসন্ধানী মিশনের চেয়ারম্যান মারজুকি দারুসমান বলেন, উপগ্রহ চিত্রাবলী এবং যাচাই করা বিভিন্ন ছবি ও ভিডিও চিত্রসহ ৮৭৫ জন প্রত্যক্ষদর্শী ও ভিকটিমদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার গবেষকরা বিপুল পরিমাণে প্রাথমিক তথ্য সংগ্রহ করেছেন।

মারজুকি বলেন, ভিকটিমদের বর্ণনা সবচেয়ে হিংস্র মানবাধিকার লঙ্ঘনের চিত্র ফুটে ওঠেছে। মায়ানমারের সেনাবাহিনী মানব জীবনের প্রতি ঘোরতর উপেক্ষা প্রদর্শন এবং ‘চরম মাত্রায় নিষ্ঠুরতা’ দেখিয়েছে।

মারজুকি বলেন, ‘রোহিঙ্গারা জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত পদ্ধতিগতভাবে এবং প্রাতিষ্ঠানিক নিপীড়নের একটি ধারাবাহিক অবস্থার মধ্যে রয়েছে।’

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গণহত্যার অভিযোগে মিয়ানমারের শীর্ষ ছয়জন সামরিক কর্মকর্তার বিচার হওয়া প্রয়োজন। রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতা থামানোর জন্য হস্তক্ষেপ করতে ব্যর্থ হওয়ায় মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি’র কড়া সমালোচনাও করা হয়েছে এ প্রতিবেদনে।

ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের নোবেলজয়ী নেত্রী অং সান সু চির বেসামরিক সরকার বিদ্বেষমূলক প্রচারকে উসকে দিয়েছে, গুরুত্বপূর্ণ আলামত ধ্বংস করেছে এবং সেনাবাহিনীর মানবতাবিরোধী অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধ থেকে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছে।

এছাড়া, ঘটনা বিচারের জন্য বিষয়টি আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে পাঠানোর জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে জাতিসংঘের এ প্রতিবেদনে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৫ আগস্ট রাখাইন রাজ্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের ওপর জাতিগত নিধন চালায় মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। শিশু-নারীও এ নিধনযজ্ঞ থেকে রেহাই পায়নি। বহু মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। এরপর থেকে প্রাণ বাঁচাতে নাফ নদী পেরিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় সাত লক্ষাধিক রোহিঙ্গা। পৃথিবীর অন্যান্য দেশ যেখানে উদ্বাস্তু-শরনার্থীদের জন্য দরজা বন্ধ করে দিচ্ছে সেখানে লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়ে মানবতার এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বাংলাদেশ।

About জানাও.কম

Check Also

সার্ক সম্মেলনে যোগ দিচ্ছে না ভারত!

সার্ক সম্মেলনে যোগ দিতে পাকিস্তানে যাচ্ছে না ভারত। পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন করছে এমন অভিযোগ তুলেই …

মন্তব্য করুন