Breaking News
Home / বিজ্ঞান-প্রযুক্তি / নতুন আবিস্কার / জ্বালানী বিহীন বিদ্যুৎ উৎপাদন ও কার্বন শোধন যন্ত্র আবিষ্কার রেজাউলের

জ্বালানী বিহীন বিদ্যুৎ উৎপাদন ও কার্বন শোধন যন্ত্র আবিষ্কার রেজাউলের


১৪ বছর গবেষণার পর বিশ্ব জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় সম্পূর্ণ জ্বালানী বিহীন, পরিবেশ বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং কার্বন শোধনের চমকপ্রদ যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন রেজাউল করিম রুমান। এই যন্ত্রের সাহায্যে শোধিত কার্বন থেকে প্লাস্টিক-পলিমার তৈরি করা যাবে।

গবেষণায় তিনি জ্বালানীর পরিবর্তে পানি ব্যবহারের মাধ্যমে কঠিন পদার্থের শক্তিকে তরল পদার্থের ওজন শক্তি রূপে কাজে লাগিয়েছেন। জ্বালানী খরচমুক্ত এই যন্ত্রের উৎপাদিত বিদ্যুৎ বাংলাদেশের চাহিদা পূরণের পরও পৃথিবীর অন্যান্য রাষ্ট্রেও বিদ্যুতের চাহিদা মেটানো সম্ভব। জ্বালানীর পরিবর্তে এই পদ্ধতিতে বিদ্যুৎ উৎপাদনের ফলে সুন্দর বাসযোগ্য পৃথিবীর জলবায়ুর নির্মল পরিবেশ বজায় থাকবে। এই ইঞ্জিনের কার্যকারিতা এবং পারফরমেন্সের সঙ্গে মিল রেখে এর নাম রাখা হয়েছে ওজন-ভাটি মেশিন।

জলবায়ুর প্রভাব মোকাবেলায় কার্বন ডাই অক্সাইড নিয়ে টানা ১৪ বছর গবেষণা-পরীক্ষা নিরীক্ষা চালান রেজাউল। গবেষণায় আবিষ্কার করেন বিষাক্ত কার্বন ডাই অক্সাইড নির্মূল পদ্ধতি এবং কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ মেশিন। ওদিকে মিল-ফ্যাক্টরি, কল-কারখানা, ইটের ভাটা, জ্বালানী বিদ্যুৎ কেন্দ্র ছাড়াও সকল প্রকার যানবাহন থেকে কার্বন নিঃসরণ দমন করবে ওজন শক্তি দ্বারা চালিত মেশিনটি।

এই আবিষ্কারে প্রাথমিক খরচ হয়েছে ৫০-৬০ হাজার টাকা। এই যন্ত্রের সাহায্যে সাশ্রয়ী মূল্যে জ্বালানী ছাড়াই একদিকে বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে। অপরদিকে মিল-কারখানার ধোয়াসহ কার্বন ডাই অক্সাইড গ্যাস শোষণের মাধ্যমে বিষাক্ততা দূর করবে। আবার এই বিষাক্ত কার্বনকে শোধনের মাধ্যমে ঘন তরল পদার্থে রূপান্তরিত করবে। সেই ঘন তরল পদার্থ দিয়েই প্লাস্টিক-পলিমার তৈরি করবে। শত বছরের গ্যারান্টিযুক্ত জ্বালানী বিহীন-পরিবেশ বান্ধব ৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্ল্যান স্থাপনে খরচ হবে প্রায় ১৪/১৫ লাখ টাকা।

রেজাউল করিম জামালপুরের মেলান্দহের মুন্সীনাংলা গ্রামের আ. লতিফের ছেলে। বর্তমানে তিনি গাজীপুরের খাঁ পাড়ায় দর্জি কাজ করে জীবিকা নির্বাহের পাশাপাশি গবেষণার কাজ করছেন। লেখাপড়া করেছেন ব্র্যাক স্কুল (৫ম শ্রেণি) পর্যন্ত। ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি এবং বই কেনার জন্য একবার বাবার কাছে ধর্না দিতে গেলে সৎ ভাইয়েরা মারপিট করে তাড়িয়ে দেয়।

রেজাউলের ইচ্ছা ছিল লেখাপড়া করে বড় হবে। অর্থাভাবে তা সম্ভব হয়নি। জলবায়ুর প্রভাব মোকাবেলায় বাণিজ্যিকভাবে এই যন্ত্রটি ব্যবহারে আগ্রহীদের কাছেও হস্তান্তরের ইচ্ছাপোষণ করেছেন রেজাউল। তিনি মনে করেন সদিচ্ছা শক্তি দিয়ে পৃথিবী জয় করা সম্ভব। সরকারি-বেসরকারিভাবে সাহায্য পেলে তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন সম্ভব বলে জানান তিনি।

সুত্রঃ ইত্তেফাক

About janaadmin517

Check Also

চীনে বন্ধ হলো সার্চ ইঞ্জিন বিং

গুগলের ওপর সেন্সরশিপের পর চিনা সরকারি নির্দেশে বন্ধ করা হয়েছে মাইক্রোসফটের সার্চ ইঞ্জিন বিং। চায়না …

মন্তব্য করুন