Breaking News
Home / লাইফ স্টাইল / হার্টের বন্ধুঃ রাইস ব্রান অয়েল।

হার্টের বন্ধুঃ রাইস ব্রান অয়েল।


হাবিবুর রহমান: তেলা মাথায় তেল দিয়ে স্বার্থ উদ্ধারে পটু কম বেশি সবাই। কিন্তু নিজের হার্টের জন্য তেলকে ভয় পান না এরকম মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। আর তাই মনের ভয় তাড়াতে আজকের এই আয়োজন। সাথে আছি আমি হাবিবুর রহমান।

তেল ছাড়া যেমন রান্না সম্ভব নয় আবার তেল দিয়ে রান্না করলেও ভয়। এই বুঝি হার্টে ব্লকেজ হয়। ভালোবাসার উৎস হার্ট তথা হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখতে তাই প্রয়োজন রাইস ব্রান অয়েল।

রাইস ব্রান অয়েল কি?

ধানের কুঁড়া থেকে উৎপাদিত এবং বিশেষ প্রক্রিয়ায় পরিশোধিত ভোজ্য তেল, যা মূলত রাইস ব্রান অয়েল নামে পরিচিত। বাজারে বিভিন্ন ব্রান্ডের রাইস ব্রান অয়েল পাওয়া যায়। যেমনঃ হেলথ কেয়ার, সলিড গোল্ড, স্যাফোলা একটিভ (উৎপাদনকারীঃ কেবিসি এগ্রো প্রোডাক্টস প্রাইভেট লিমিটেড), ন্যাচার ফ্রেশ (আব্দুল মোনেম ব্রান অয়েল লিঃ), হোয়াইট গোল্ড (রশিদ অয়েল মিলস লিঃ) ইত্যাদি। এর মধ্যে সলিড গোল্ড, স্যাফোলা একটিভ যথাক্রমে ইফাদ এবং ম্যারিকো বাজারজাত করে থাকে।

আসল ব্রান অয়েলের বৈশিষ্ট্যঃ

(১) রাইস ব্রান অয়েল গন্ধবিহীন। তবে তেল যদি দীর্ঘদিন রেখে দেয়া হয় তাহলে অল্প গন্ধ আসতে পারে। সূর্যালোকের সংস্পর্শ থেকে দূরে রাখলে গন্ধ কম হয়।
(২) অনেক সময় দেখা যায় রাইস ব্রান অয়েল শীতকালে গোলাটে হয়। এটা খুবই স্বাভাবিক। তবে সয়াবিন মেশানো থাকলে গোলাটে ভাব আসে না। যেমনঃ স্যাফোলা একটিভ; এতে ২০% সয়াবিন থাকে। সয়াবিন থাকে, যদিও এই তেল কোলেস্টেরল ফ্রি।
(৩) আসল রাইস ব্রান অয়েলের রং সরিষা তেলের মতো। অনেক সময় সরিষা তেলের চাইতে আর বেশি কালারও থাকতে পারে।

এই তেল হার্টের জন্য উপকারী কেন?

(১) আমেরিকান হার্ট এসোসিয়েশন ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য মতে এই তেল রক্তের কোলেস্টেরল মাত্রা কমাতে সাহায্য করে।
(২) রাইস ব্রান অয়েলের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এই তেলে প্রাকৃতিক ভাবে আয়োডিন, ভিটামিন -ই এবং গামা অরাইজানল নামক এন্টি অক্সিডেন্ট থাকে। বিশুদ্ধ ব্রান অয়েল ১০০% কোলেস্টেরল মুক্ত এবং প্রায় ২% গামা অরাইজানল থাকার কারনে হার্টের জন্য উপকারী।
(৩) এই তেলে স্কুয়ালিন নামক একটি উপাদান রয়েছে যা ত্বকের স্বাস্থ্য রক্ষায় সাহায্য করে। এই তেলের স্মোক পয়েন্ট ২৫৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তাই উচ্চ তাপে রান্না করলেও তেলের গুনাগুন নষ্ট হয় না।
(৪) রাইস ব্রান অয়েলে ট্রান্স ফ্যাট থাকে না। যার ফলে শরীরে ফ্যাটি আসিডের ভারসাম্য ঠিক থাকে।
(৫) বয়ষ্ক নারীদের মেনোপজের প্রভাব কমাতে রাইস ব্রান অয়েল সাহায্য করে বলে গবেষণায় উঠে এসেছে।

সতর্কবার্তাঃ গন্ধযুক্ত রাইস ব্রান অয়েল বা অন্য যে কোন তেল ব্যবহার করা উচিত নয়। তেল গন্ধ হয়ে গেলে তাতে ফ্রি রেডিক্যাল প্রক্রিয়ায় পারক্সাইড তৈরি হয়। যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।
বিঃদ্রঃ বিশুদ্ধ সয়াবিন তেলও ১০০% কোলেস্টেরল মুক্ত। কিন্তু এতে ব্রান অয়েলের মতো পুষ্টি উপাদান নেই।

লেখকঃ শিক্ষার্থী, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, খাদ্য প্রযুক্তি ও পুষ্টি বিজ্ঞান বিভাগ।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন