সোমবার , অক্টোবর 14 2019
Breaking News
Home / লাইফ স্টাইল / কাঁঠাল পাতার উপকারিতা

কাঁঠাল পাতার উপকারিতা


কাঁঠাল সম্পর্কে আলোচনা করতে গেলে প্রথমেই মনে আসে কাঁঠাল ফলের কথা। অনেকেই ধারনা করি কাঁঠালের বীচির কথাও। আজকে কাঁঠাল পাতা নিয়ে আপনাদের কে কিছু অবাক করা তথ্য দিতে চাই।

Shrikant Baslingappa Swami, N. J. Thakor, P. M. Haldankar ও S. B. Kalse এর একটি নিবন্ধ থেকে দেখা যায় কাঁঠাল পাতায় sapogenins, cycloartenone, cycloartenol, β-sitosterol ও tannins নামক উপাদান রয়েছে।

কাঁঠাল পাতার উপকারিতা

মনে করুন ব্যায়াম করতে গিয়ে ব্যাথা পেলেন আর সেখানে ক্ষত সৃষ্টি হলো। আপনি খুব চিন্তিত কারন ক্ষত সারতেছে না। আপনি কাঁঠাল পাতা ব্যবহার করতে পারেন। কাঁঠাল পাতার পেস্ট আপনার মৃত কোষ ভালো করতে সাহায্য করবে।

ব্যবহারবিধি

১। প্রথমে কিছু কাঁঠাল পাতা ভালো করে ধুয়ে নিন। খুব কচি কিংবা পাকা যেন না হয়।
২। ভালো করে পেস্ট তৈরি করুন
৩। তারপর আঘাত প্রাপ্ত স্থানে প্রলেপ লাগিয়ে দিন ক্রিমের মতো করে।
সপ্তাহে অন্তত একবার ব্যবহার করুন। ভালো ফল পেতে দৈনিক একবার লাগাতে পারেন।

আপনার ত্বক কি বয়সের তুলনায় বেশি বৃদ্ধ দেখাচ্ছে? চিন্তার কারন নেই। কাঁঠাল পাতার পেস্ট ব্যবহারে এতে থাকা এন্টিওক্সিডেন্ট আপনার ত্বককে অকাল বার্ধক্যের হাত থেকেও রক্ষা করবে।
কাঁঠাল পাতায় থাকা ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট ক্যন্সারের ঝুঁকি কমায় এবং হৃদরোগের জন্যও বেশ ফলদায়ক। এছাড়া অস্টিওপোরোসিস রোধ এবং উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণেও ভূমিকা পালন করে।
রক্তের শর্করার মাত্রা কমিয়ে ডায়াবেটিস নিরাময়ে সাহায্য করে। বুকের দুধ খাওয়াচ্ছেন এমন মায়েদেরকে স্তনে দুধ বৃদ্ধি করতেও বেশ কার্যকর। কাঁঠাল পাতা আপনার শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ অপসারন করতে সাহায্য করে।

কাঁঠাল পাতা গ্রহনের নিয়মঃ

১। ১০ থেকে ১৫ টি পূর্ণ বয়স্ক কাঁঠাল পাতা ভালো করে ধুয়ে নিন।
২। সাথে কিছু আদা কুচি দিয়ে ৩ থেকে চার গ্লাস পানি দিন।
৩। মিশ্রনটি ফোঁটা অবধি গরম করতে থাকুন।
৪। তারপর নামিয়ে ঠান্ডা করে দিনে অন্তত তিনবার পান করুন।

কেউ কেউ কাঁঠাল পাতার বড়া করেও খেতে পারেন। কাঁঠাল পাতার বড়া খেতে চাইলেঃ

১। ৫ থেকে ৬ টি মাঝারি বয়সের পাতা ভালো করে ধুয়ে নিন
২। কুচি কুচি করে কেটে পরিমান মতো চালের গুড়া মিশিয়ে তাতে অন্যন্য মশলা মিশিয়ে নিন।
৩। পরিমান মতো তেলে ভালো করে ভেজে পরিবেশন করুন।

সতর্কতাঃ অন্যকোন এন্টিবায়টিক ঔষধ সেবন করার দিনগুলোতে কাঁঠাল পাতা গ্রহন না করা উত্তম। এতে হিতে বিপরীত হতে পারে। হজমের সমস্যা থাকলে বড়া খাওয়া উচিত নয়। বড়া খেতে গেলে অবশ্যই ভালো করে ভেজে সিদ্ধ করে নিতে হবে।

তথ্যসূত্রঃ drhealthbenefit.com

লেখকঃ শিক্ষার্থী, ফুড টেকনোলোজি এন্ড নিউট্রিশনাল বিভাগ, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

About জানাও.কম

Check Also

ডায়াবেটিস সম্পর্কে এসব তথ্য কি আপনি জানেন?

ডায়াবেটিস সম্পর্কে এসব তথ্য কি আপনি জানেন? – ছবি : সংগৃহীত ডায়াবেটিস এমন একটি শারীরিক …

মন্তব্য করুন