শনিবার , ডিসেম্বর 7 2019
Breaking News
Home / পাঁচ-মিশালী / চিন্তা-চেতনা / সুশিক্ষিত আসলে কাদের হওয়া উচিত? ভন্ডামি আসলে কাদের ছাড়া উচিত ? লজ্জা আসলে কাদের পাওয়া উচিত ?

সুশিক্ষিত আসলে কাদের হওয়া উচিত? ভন্ডামি আসলে কাদের ছাড়া উচিত ? লজ্জা আসলে কাদের পাওয়া উচিত ?

জিপসি রুদ্র: গণতন্ত্রের মূল বিষয় হইলো, প্রজাতন্ত্রের মালিক জনগন । এই জনগন থেকেই জন প্রতিনিধি নির্বাচিত হয় । কারা নির্বাচিত করবে এই জনপ্রতিনিধি ? জনগনই । সহজ ভাষায় কইতে গেলে ব্যাপারটা এই রকম, জনগনই তাদের প্রতিনিধি বা নেতা নির্বাচন করবে ।

কৃষক যদি কৃষকের প্রতিনিধি হিশেবে কৃষককে নির্বাচিত করে তাইলে আমার আপনার কিচ্ছু বলার থাকে কী?

মেথর যদি মেথরের প্রতিনিধি হিশেবে মেথরকে নির্বাচিত করে তাইলে আমার আপনার কিচ্ছু বলার থাকে কী?

হিজড়া যদি হিজড়ার প্রতিনিধি হিশেবে হিজড়াকেই নির্বাচিত করে তাইলে আমার আপনার কিচ্ছু বলার থাকে কী?

চোর চাটকা চিটিং বাটপার দুর্নীবাজ ঘুষখোর বেশ্যা বেশ্যার দালাল ধর্ষক এরা যদি তাদের জনপ্রতিনিধি হিশেবে তাদের মতন একজন মানুষকে জনপ্রতিনিধি হিশেবে নির্বাচিত করে তাহলে আমার আপনার কিচ্ছু বলার থাকে কী?

গণতন্ত্রে রাষ্ট্রের সকল মানুষকে সমান ভাবে সমান চোখে দেখার কথা । কাউকেই আলাদা ভাবে বড় ছোট করে দেখার সুযোগ নাই । তাই বলা হয় গণতান্ত্রিক দেশে আইন সকলের জন্যেই সমান । এইখানে বর্ণবাদ কিংবা ধর্মভিত্তিক জাত পাত আলাদা ভাবে দেখার কোন সুযোগ নাই ।

হিরো আলম রাষ্ট্রের একজন জনগন । সে দেখতে কেমন, তার আচার আচরণ কেমন , তার কথা বলার স্টাইল কেমন, সেটা কখনোই বিবেচ্য হইতে পারেনা রাষ্ট্রের কাছে । তার জনপ্রতিনিধি হিশেবে নির্বাচিত হওয়ার ইচ্ছা একান্তই তার । সে নির্বাচিত হবে কী হবে না সেটা তার এলাকার জনগনই ডিসাইড করবে । আমি আপনি না ।

হিরো আলমকে মূলত তার কাজের জন্য ট্রল কিংবা হাসি তামাশা করে রাষ্ট্রের সুশীল কিসিমের এলিট শ্রেনি এবং নাকসিটকানো পাবলিকেরা তাকে এই জায়গায় নিয়ে আসতে সাহায্য করেছে । হিরো আলম তার পরিচিতিকে কাজে লাগিয়ে বাঙলা সিনেমায় দেহপুজি করে রাজনীতিতে আসা নায়িকা শায়লা, রেলষ্টেশনে গান গাওয়া মমতাজ , মনোরঞ্জনকারী বেবি নাজনীন , কবরী , তারানা হালিম, মনিরখান , সোহেল রানা , আরিফ খান জয় , মাশরাফি, আমিনুলসহ অন্য অসংখ্য লোকের মতন জাতীয় রাজনীতিতে আসতে চাইছে । সবচাইতে বড় কথা হিরো আলম সম্পূর্ণ তার হিম্মতে দুইবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন করে তার জনপ্রতিনিধি হওয়ার খোয়াব জানান দিছিলো । উপরে লিখিত কেউই তা কিন্তু করে নাই । তারা শুধু মাত্র পরিচিতিকে কাজে লাগিয়ে সরাসরি জাতীয় রাজনীতিতে চলে আসছে !

হিরো আলমের পড়ালেখা মানে শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে যেভাবে প্রশ্ন করা হচ্ছে সেই প্রশ্ন গুলা কী আমরা খালেদা জিয়াসহ দেশের অন্যান্য রাজনৈতিক ব্যাক্তিদের কাছে করি ?

অশিক্ষিত, অক্ষর জ্ঞানহীন এবং হিরো আলমের মতন শুদ্ধ উচ্চারণে কথা বলতে না পারা বহুলোক দেশের ইউনিয়ন পরিষদ থেকে শুরু করে দেশের মহান সংসদে অনেক আগে থেকেই জনপ্রতিনিধি হিশেবে নির্বাচিত হয়ে গেছে । তাদের বিরুদ্ধে কী এই যাবত কেউ একটা কথা বলেছে ?

হিরো আলম দেখতে কী ভারতের মহাত্মা গান্ধীর চাইতেও খারাপ নাকি হিরো আলমের চেহারা পাকিস্তানী জানোয়ার ইয়াহিয়া খানের চেহারার চাইতেও খারাপ ?

গণতন্ত্রের মূল বিষয় কারো পড়ালেখা কিংবা শিক্ষাগত যোগ্যতা অথবা কার চেহেরা দেখতে কেমন, কার শরীরের গোশতো বেশি, কার শরীরের গোশতো কম, কার কথা বলার স্টাইল সুন্দর অসুন্দর সেটা নয় ; গণতন্ত্রের মূল বিষয় হচ্ছে, জনগনই তাদের জনপ্রতিনিধি কে হবে সেটা নির্বাচিত করবে । জনগনই আসলে নির্ধারণ করবে তাদের প্রতিনিধি কেমন হবে ।

গণতন্ত্র নিয়ে লম্বা লম্বা ছবক দেওয়া মিডিয়াবাজ আর কলামবাজরা হিরো আলমের জনপ্রতিনিধি হইতে চাওয়ার খায়েশকে যেভাবে কটাক্ষ শুধু নয় চরম অপমানে করছে তা স্রেফ রেসিজম বা বর্ণবাদীতার সামিল । যে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে লড়াই সংগ্রাম করার কারণে আফ্রিকার নেলসন মেন্ডেলাকে আমরা ঐতিহাসিক নেতা হিশেবে স্বীকৃতি দিয়েছি । আর আমরাই হিরো আলমের বিরুদ্ধে বর্ণবাদী আচরণ করছি ।

সুশিক্ষিত আসলে কাদের হওয়া উচিত? ভন্ডামি আসলে কাদের ছাড়া উচিত ? লজ্জা আসলে কাদের পাওয়া উচিত ?

About জানাও.কম

Check Also

নির্বাচনের আগে পরে

আমাদের দেশের সবচেয়ে বড় ঘটনা হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধ যারা এই কথাটা বিশ্বাস করেন না কিংবা কথাটাকে …

মন্তব্য করুন