রবিবার , জানুয়ারী 26 2020
Breaking News
Home / অঞ্চলিক সংবাদ / আখাউড়ার ইউএনও অপসারনের দাবীতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাংবাদিকদে মানববন্ধন

আখাউড়ার ইউএনও অপসারনের দাবীতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাংবাদিকদে মানববন্ধন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নিতাই চন্দ্র ভৌমিকঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে শিক্ষক কর্তৃক দায়েরকৃত মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাংবাদিক সমাজ। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি খ. আ. ম. রশিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক দীপক চৌধুরী বাপ্পী, প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক বাহারুল ইসলাম মোল্লা, সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ আরজু, সাবেক সাধারন সম্পাদক সাদেকুর রহমান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া টেলিভিশন জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন জামি, জেলা সাংস্কৃতিক জোটের আহবায়ক আব্দুন নুর, সিনিয়র সাংবাদিক জাবেদ রহিম বিজন, আখাউড়া প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ রফিকুল ইসলাম, আখাউড়া প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক হান্নান খাদেম, আখাউড়া টিভি জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক মোঃ সাইফুল ইসলাম, সাংবাদিক ফজলে রাব্বি, সাংবাকি মহিউদ্দিম মিশু প্রমুখ।

বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ইন্ধনে আখাউড়া প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক হান্নান খাদেম ও সাংবাদিক মহিউদ্দিন মিশুর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেন একজন শিক্ষক। সংবাদ প্রকাশের ২৫দিন পর মামলাটি করিয়েছেন। তিনি বিষয়টি সমাধান করে দেবেন বলে সভা ডেকেও তা সমাধান করেননি। অবিলম্বে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীর পাশাপাশি আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার রেইনার অপসারন দাবী করেন।

অন্যথায় কঠোর কর্মসূচীর হুশিয়ারী দেয়া হয় মানববন্ধনে। এই বিষয়টি আইনমন্ত্রী এডভোকেট আনিসুল হক এর নির্বাচনী এলাকা হওয়ায় তাঁর হস্তক্ষেপ কামনা করেন সাংবাদিক সমাজ। পরে সাংবাদিকরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে প্রেসক্লাব প্রাঙ্গনে এসে শেষ হয়। আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার রেইনার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বসার পরিবেশ তৈরি করতে পারিনি। আর তাই বসা হয়নি। অপসারন চাইতেই পারে। এটা তাদের গনতন্ত্রের অধিকার।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সনের ১৪ নভেম্বর জেএসসি’র গণিত পরীক্ষা চলাকালে ওই দুই সাংবাদিক পেশাগত কাজে আখাউড়া রেলওয়ে স্কুল কেন্দ্রে যান এবং পরের দিন ১৫ নভেম্বর জাতীয় দৈনিকে ওই কেন্দ্রের নকলের সংবাদ প্রকাশ করেন। নকলের সংবাদ প্রকাশ করায় ২৫ দিন পর মামলা করেন আখাউড়া উপজেলার মনিয়ন্দ উচ্চ বিদ্যালেয়ের ভারপ্রাপ্ত সহকারী প্রধান শিক্ষক কাজী ইকবাল। মামলার অভিযোগ সাংবাদিকেরা জোরপর্বক কেন্দ্রে প্রবেশ করেছেন এবং মানহানিকর সংবাদ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু মামলার বাদীর ওই দিন ওই কেন্দ্রে ডিউটি ছিল না। তিনি ওই কেন্দ্রও ছিলেন না। ওই কেন্দ্রের সচিব, সহকারী সচিব বা ডিউটিরত কোন শিক্ষক মামলা করেননি।

About জানাও.কম

Check Also

সিলেট ওসমানী বিমানবন্দরে বসছে ই-গেইট

চৌধুরী মুহায়মিন সোবহান ফাহিমঃ মাত্র ১৫ সেকেন্ডে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন পার হওয়ার …

মন্তব্য করুন