Breaking News
Home / অঞ্চলিক সংবাদ / আশুগঞ্জে সরিষা ক্ষেতে শুরু হয়েছে আধুনিক পদ্ধতিতে মধু চাষ

আশুগঞ্জে সরিষা ক্ষেতে শুরু হয়েছে আধুনিক পদ্ধতিতে মধু চাষ

আশুগঞ্জ থেকে মোঃ ফারুক মিয়াঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে সরিষা ক্ষেতে শুরু হয়েছে আধুনিক পদ্ধতিতে মধু চাষ। হলুদ বর্ণের সরিষা ফুলের মৌ মৌ গন্ধে আর মৌমাছির গুঞ্জন ও গুনগুনানিতে এলাকা মুখরিত হয়ে উঠেছে। প্রশিক্ষন ছাড়া মধু চাষ শুরু করেন ব্রাহ্মনবাড়িয়ার তারেক। তিনি তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে মধু চাষের কৌশল শিখেছেন। মৌমাছি এনে পরীক্ষামূলক ভাবে চাষ শুরু করেন ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে সোনারামপুরে ।

মৌমাছির গুঞ্জন আর গুনগুনানি শুনে মনে হচ্ছে ক্ষেতের মাঠে কোন রাখালিয়া ভাই মনের আনন্দে বাশিঁতে সুর দিচ্ছেন। সবুজ শ্যামল মাঠে হলুদ বর্ণের সরিষা যেন রাখাল গায়ের বধুদের হাতছানি দিচ্ছে। এযেন আরেক প্রাকৃতিক দৃশ্যের অপররুপ লীলা ভুমি। সরিষা ক্ষেতের চতুরপাশে মধু আহরণের বক্স সাজিয়ে রাখছেন। প্রতিটি বক্সে মাত্র ১টা করে রানী মৌ-মাছি রয়েছে এবং মধু আহরণের জন্য প্রায় ১৫ থেকে ২০হাজার শ্রমিক মৌ-মাছি আসা যাওয়া করছে।

মৌমাছির গুন গুনানি শুনে আশপাশ মুখরিত। ২টি খামারে পাশে প্রায় শতাধিক বক্স রয়েছে। প্রতিটা বক্স থেকে সাপ্তাহে ২ (দুই) থেকে ৩ কেজি পর্যন্ত মধু আহরণ করা হয় এবং স্থানীয়ভাবে প্রতিকেজি মধুর দাম ৬শ টাকা। কথা হয় খামারের মালিক মধুচাষী রিমন রহমানের সাথে, তিনি বলেন আমি কোন প্রশিক্ষন নেইনি, তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে মধু চাষের বিভিন্ন নিয়ম ও কৌশল দেখি এবং সে অনুযায়ী কাজ (চাষ) শুরু করি। ১ম গাজী পুর থেকে রানী মৌমাছি নিয়ে ২০১৯ এর অক্টবরে পরীক্ষামুলক আশুগঞ্জ সোনারামপুরে চাষ শুরু করি। মধুর গুণগত মান ভালো হওয়ায় স্থানীয়দের চাহিদা মেটাতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে। পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মানুষ মধু পাঠাচ্ছে তাদের প্রিয়জনদের কাছে।

আশুগঞ্জ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসারর জাঙ্গীর আলম জানান,চলতি মৌসুমে আশুগঞ্জ উপজেলার সোনারামপুরে ১৪শ হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ করা হয়েছে। মধু চাষীরা প্রায় ২ মাসে ৪ লক্ষ টাকা আয় করবে। তারা সরিষা, ধনিয়া,কালিজিরার ফুল থেকে মধু সংগ্রহ করে থাকে। তিনি আরো জানান, আমরা জমির মালিকদের বলেছি যেন ফসলি জমিতে কীটনাশক ব্যবহার না করে। এ ব্যাপারে মধু চাষীদের উপজেলা কৃষি অফিস হতে সার্বিকভাবে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।
কৃষক ও মধু সংগ্রহকারী সূত্রে জানা গেছে, ফসলি জমিতে পোকা-মাকড় দমনের জন্য কৃষক বাজার থেকে ইচ্ছেমতো দোকানদারের পরামর্শে কীটনাশক ব্যবহার করছেন। এছাড়া বিভিন্ন কীটনাশক কোম্পানির প্রতিনিধিরা সরিষাসহ বিভিন্ন ফসলি আবাদি জমিতে কৃষকদের কীটনাশক ব্যবহার করার জন্য পরামর্শ দিয়ে থাকেন। এসব কীটনাশক পরিবেশের জন্য খুবই ক্ষতিকর। বিশেষ করে মৌমাছিই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। কারণ কীটনাশক ব্যবহারের ফলে সরিষার ফুল থেকে মৌমাছি মধু সংগ্রহ করতে গিয়ে মারা পড়ছে।
মধু সংগ্রহকারীরা জানিয়েছেন,সরিষা ফুল থেকে নভেম্বর থেকে ফেব্রæয়ারী মাস পর্যন্ত অর্থাৎ চার মাস মধু সংগ্রহ করা যায়।
মৌচাষী মো:রিমন জানান, মৌ মাছির খামার বা মৌচাষ দিয়ে আমরা বেকার সমস্যা দূর করতে পারি। তিনি আরো বলেন, মৌ চাষ করতে গিয়ে কৃষকদের বিভিন্ন প্রশ্নের সম্মুখিন হতে হয়। কৃষকরা মৌচাষকে সমস্যা বলে মনে করে। তাদের ধারণা মৌমাছি ফুলের উপড় পড়লে ফুলের ক্ষতি হয়। ফুল শুকিয়ে যায়। আমরা তাদের বুঝিয়ে বলি, মৌমাছি ফুলের উপর পড়লে ফুলের পরাগায়ন ঘটায় ফসলটা পুষ্ট হয় । ফসলটা ৩০ ভাগ বৃদ্ধি হয়।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন