Breaking News
Home / বাংলাদেশ / ভারত বাংলাদেশ সীমান্তে হত্যা বন্ধ ও নিহতদের ক্ষতিপূরণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট

ভারত বাংলাদেশ সীমান্তে হত্যা বন্ধ ও নিহতদের ক্ষতিপূরণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট

জানাও ডেস্কঃ
সীমান্তে হত্যা বন্ধে ও বিএসএফ কর্তৃক নিহত প্রতি বাংলাদেশী পরিবারকে ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতিপূরণ চেয়ে মহামান্য হাইকোর্টে রিট বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) কর্তৃক বাংলাদেশী নাগরিকদের হত্যা ও নির্যাতন বন্ধ করতে, পাশাপাশি নিহত ও নির্যাতিত বাংলাদেশিদের যথাযথ ক্ষতিপূরণ প্রদানের ব্যাপারে নির্দেশনা চেয়ে মহামান্য হাইকোর্টে রিট আবেদন দায়ের করা হয়েছে । জনস্বার্থে উক্ত রিট আবেদন দায়ের করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোঃ মাহমুদুল হাসান (মামুন) এবং তাকে সহযোগিতা করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এডভোকেট মোঃ মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া । রিট মামলা নং: ১৯৭৮/২০২০ উক্ত রিটে স্বরাষ্ট্র,পররাষ্ট্র ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রধানগণ, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর ডিরেক্টর জেনারেল কে বিবাদী করা হয়েছে। বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে বিএসএফ এর গুলিতে বাংলাদেশী নাগরিকদের নিহত হওয়ার সংখ্যা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে । মানবাধিকার সংস্থা “অধিকার” এর রিপোর্ট অনুযায়ী বিগত ২০০০ থেকে ২০১৮ সনে বিএসএফ কর্তৃক ১১৪৪ বাংলাদেশী নাগরিক নিহত, ১৩৬৭ বাংলাদেশী নাগরিকদের অপহরণ, ১৫ বাংলাদেশী নাগরিক ধর্ষিত হয়েছে । অপর মানবাধিকার সংস্থা “আইন ও সালিশ কেন্দ্র” এর রিপোর্ট অনুযায়ী ২০১৯ সালের জানুয়ারি ও নভেম্বর পর্যন্ত বিএসএফ এর গুলিতে ৩৩ বাংলাদেশী নাগরিক নিহত হয়েছে এবং নির্যাতনে ৫ বাংলাদেশী নাগরিক নিহত হয়েছে । ভারতের সাথে মোট ছয়টি দেশের সীমান্ত রয়েছে যেমন: চীন, পাকিস্তান, মায়ানমার, নেপাল, ভূটান ও বাংলাদেশ । গণমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ প্রধানত বাংলাদেশ সীমান্তে বাংলাদেশীদের হত্যা করে থাকে এবং যুদ্ধ ব্যতীত ভারতের সাথে অন্যান্য দেশের সীমান্তে হত্যাকাণ্ড প্রায় “শূন্য” ।
বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ আইন, ২০১০ এর ধারা ১১ (১) (ক) ও (খ) অনুযায়ী সীমান্ত সুরক্ষা নিশ্চিত করা এবং সীমান্তে চোরাচালান, নারীশিশু পাচার, মাদকদ্রব্য চোরাচালান সহ সকল আন্তরাষ্ট্রীয় অপরাধ সমূহ প্রতিরোধের দায়িত্ব বিজিবির । কিন্তু সংবিধান ও আইন অনুযায়ী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) বাংলাদেশের সীমান্তে সুরক্ষা প্রদানে ব্যর্থ হয়েছে । অন্যদিকে বাংলাদেশী নাগরিকদের অপহরণ করে এবং বাংলাদেশের সীমানার অভ্যন্তরে বাংলাদেশী নাগরিকদের গুলি করে বিএসএফ বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব লংঘন করেছে । যাইহোক বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ও প্রতিরক্ষা বাহিনীসমূহের আইনি বাধ্যবাধকতা রয়েছে । বাংলাদেশ সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩১ ও ৩২ অনুযায়ী “আইনের আশ্রয় লাভের অধিকার” এবং “জীবন ও ব্যাক্তি স্বাধীনতা অধিকার রক্ষণ” প্রত্যেক নাগরিকের মৌলিক অধিকার । অপরদিকে বাংলাদেশ সংবিধানের ৩৫ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রত্যেক নাগরিকের যথাযথ বিচার পাওয়ার অধিকার রয়েছে । সেক্ষেত্রে সীমান্তে কোন বাংলাদেশী নাগরিক কোন অপরাধ করলেও তার আইনগত অধিকার ও বিচার পাওয়ার অধিকার রয়েছে । এক্ষেত্রে বিবাদীবৃন্দ সীমান্তে বাংলাদেশী নাগরিকদের সংবিধানে বর্ণিত মৌলিক অধিকার রক্ষায় ব্যর্থ হয়েছে । ভারতীয় আইন অনুযায়ী, কোন বিদেশী যথাযথ কাগজপত্র ছাড়া ভারতে প্রবেশ করলে তা Indian Foreigns Act, 1946 এর ১৪ ধারা অনুযায়ী সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের জেল ও কারাদণ্ড হতে পারে । এক্ষেত্রে কোন বাংলাদেশী যদি অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করে, সেক্ষেত্রে ভারতীয় আইনে তার বিচার পাওয়ার অধিকার রয়েছে এবং কোনভাবেই ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) বাংলাদেশী নাগরিকদের হত্যা করতে পারবে না । এক্ষেত্রে বিএসএফ স্বয়ং তাদের ভারতীয় আইনের তোয়াক্কা না করে বাংলাদেশী নাগরিকদের হত্যা করছে । অপরদিকে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বাংলাদেশী নাগরিকদের রক্ষায় যথাযথ কূটনৈতিক পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হয়েছে । এছাড়া উক্ত রিটে, ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) কর্তৃক বাংলাদেশী নাগরিকদের হত্যা ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে যথাযথ ক্ষতিপূরণ চাওয়া হয়েছে । এক্ষেত্রে ক্ষতিপূরণের অংক নির্ধারণে যুক্তরাষ্ট্র ও লিবিয়ার মধ্যে সম্পাদিত “Lockerbie Settlement” এর কথা বলা হয়েছে যেখানে লিবিয়া সরকার PAN AM Flight 103 এ হামলার দায়িত্ব স্বীকার করে নিহত প্রতি পরিবারকে ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতিপূরণ প্রদান করে । উক্ত উদাহরণ অনুসরণ করে, বাংলাদেশ সরকারকে ভারত সরকারের কাছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) কর্তৃক নিহত প্রত্যেক বাংলাদেশীর পরিবারকে ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতিপূরণ এবং প্রত্যেক নির্যাতিত বাংলাদেশী নাগরিককে ৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবি জানাতে বলা হয়েছে

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন