বৃহস্পতিবার , এপ্রিল 2 2020
Breaking News
Home / অঞ্চলিক সংবাদ / মাজার জিয়ারত আর হল না, ঘাতক বাসের কবলে পড়ে ছয়টি জীবনের প্রদীপ নিভে গেল

মাজার জিয়ারত আর হল না, ঘাতক বাসের কবলে পড়ে ছয়টি জীবনের প্রদীপ নিভে গেল

ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে নিতাই চন্দ্র ভৌমিক : সড়কজুড়ে উৎসুক মানুষের ঢল। সবার দৃষ্টি ছিল শুধু সেই মাইক্রোবাসটির দিকে। ১০ জন যাত্রী নিয়ে যে মাইক্রোবাসটি মাজার জিয়ারতের উদ্দেশ্যে সিলেট যাচ্ছিল। কিন্তু শুক্রবার (০৬ মার্চ) ভোর রাত সাড়ে ৩টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার ভাটি কালিসীমা এলাকায় যাত্রীবাহী একটি বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে মাইক্রোবাসটিতে থাকা ছয়জন নিহত হন। সংঘর্ষের পরপরই মাইক্রোবাসটির সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হয় এবং আগুন ধরে যায়। এসময় ভেতরে থাকা যাত্রীরা অগ্নিদগ্ধ হয়। রাত গভীর হওয়ায় তাদের উদ্ধারের জন্য আশেপাশে তেমন কেউ ছিল না। এ যেন এক নীরব আত্মচিৎকার। যেন এক বিভীষিকাময় পরিবেশ সৃষ্টি হয়। ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, মাইক্রোবাসটি পুড়ে ও দুমড়ে-মুছড়ে গেছে মাইক্রোবাসটি। নিহত যাত্রীরা অগ্নিদগ্ধ হয়ে পুড়ে যাওয়ায় তাদের পরিচয় শনাক্ত করা যাচ্ছে না সংশ্লিষ্টদের। সড়কে ছিটিয়ে আছে গাড়ির ভাঙা গ্লাস। সড়কের বিপরীত পাশে পড়ে লিমন পরিবহনের বাসটি। যার সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে নিভে যায় ছয়টি জীবন প্রদীপ। নিহত ৬ জনের পরিচয় জানা গেছে। তারা হচ্ছেন নারায়নগঞ্জের বন্দর থানার দেউলী গ্রামের সোহান,সাগর,রিফাত,হারুন, ইমন ও শাকিল। এ ঘটনায় আহত ৪ জন জিসান,শাহিন,বিজয় ও অজ্ঞাত আরেকজনকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তির পর ঢাকায় প্রেরন করা হয়। জানা গেছে হতাহতরা সবাই একটি মাইক্রোবাসে করে সিলেট মাজার জিয়ারতের উদ্দেশ্য যাচ্ছিলেন। নিহতদের লাশ ঘটনাস্থল থেকে উদ্বার করে হাটিখাতা হাইওয়ে ফাড়িতে রাখা হয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হাটিহাতা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাইনুল ইসলাম জানান- নারায়নগঞ্জ থেকে সিলেটগামী মাইক্রোবাস এবং সুনামগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী রিমন পরিবহনের একটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে এদূর্ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের পর মাইক্রোবাসটির গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়ে আগুন ধরে যায়। আর বাসটি পাশের খাদে উল্টে পড়ে। তবে হাইওয়ে পুলিশ জানিয়েছে এতে বাসযাত্রীরা তেমন কোন আঘাত পাননি।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন