Breaking News
Home / অঞ্চলিক সংবাদ / একজনের খুঁনের দায়ে প্রতিবাদী সাংবাদিককে ফাঁসানোর গভীর ষড়যন্ত্র!

একজনের খুঁনের দায়ে প্রতিবাদী সাংবাদিককে ফাঁসানোর গভীর ষড়যন্ত্র!

পূর্ণিমা হোসাইন কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ
কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার আঠারবাড়ীয়া গ্রামের কৃষক ইশাদ আলীকে(৫০) গত ১৮ই এপ্রিল-২০২০ইং বেলা আনুমানিক সাড়ে ১২টার দিকে বাড়ীর সীমানা নিয়ে দন্দের জের স্বরূপ সৈয়দ আলী(৩০) নামের একজন দা দিয়ে কুপিয়ে আহত করে ইশাদ আলীকে সরারচর রেলগেইট সংলগ্ন স্থানে। সৈয়দ আলীর পরিচয় জানাগেছে, তিনি আঠার বাড়ীয়া গ্রামের আহম্মদ আলীর তৃতীয় ছেলে। ইরশাদ আলী আহম্মদ আলীর আপন ভগ্নিপতি। আত্মীয়তার দিক দিয়ে ইশাদ আলীর আপন সম্বন্ধীর ছেলে।
তবে এ বিষয়ে আহম্মদ আলী তার মুঠোফোনে সাংবাদিকদের স্পষ্ট করে অপরাধের দায় স্বীকার করে বলেন “খুন আমার ছেলে করে নাই খুন করেছি আমি নিজেই এবং খুনের ঘটনায় অন্য কেউ জড়িত নেই” তিনি আরো বলেন, ইশাদ আলী আমার সীমানার সংলগ্ন বাড়িতে বসবাস করে আর এই বাড়ী নিয়ে ইরশাদ আলী ও তার সহপাঠী প্রয়াত সফির উদ্দিন মাষ্টার গংদের সাথে প্রায় পঁয়তাল্লিশ বছর ধরে দেওয়ানি ও ফৌজদারি আদালতে মামলা থাকাসত্ত্বেও তিনবার আমার ঘরবাড়ি ভাংচুর করে নিয়ে গেছে, এমনকি ঘরে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পুড়িয়ে ছাই করে দিয়েছে। বিনা অপরাধে ভাইবেড়াধর ও স্বজনদের ঘর বাড়ি ও সম্পদ লুটপাট করে নিয়ে গেছে ১৯৮৭ সালে। এ বিষয়েও মামলা করা হয়েছে। প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে মামলা করেও কিছুই করতে পারিনা। পরবর্তীতে ১৯৯২ সালে আপোষের লক্ষ্যে শান্তনা দিয়ে আমাকে বাড়িতে এলাকাবাসীর বৈঠকে মিমাংসায় ঠাঁই দেয়া হয়। পুনরায় তৈরি করা ঘর ও আমার সাজানো সংসার এবং প্রায় এক একর বাড়ি ও পুকুরে কলাবাগান ও মাছ চাষ করি। বিনা অজুহাতে ইশাদ আলীও তার সহপাঠী সফির উদ্দিন গং মিলে পুকুর থেকে মাছ ধরে নিয়ে যায়। প্রতিবাদ করলে পুকুরের পাড় কেটে ফেলে, কেটে ফেলে ফলন্ত কলাবাগান, ঘরবাড়ি ভাংচুর করে লুটপাট করে সব কিছু নিয়ে যায়। এ বিষয়েও নিকলী থানায় মামলা দায়ের করি। এক পর্যায়ে অসহায় হয়ে আবারও যৌথ পরিবার নিয়ে ঢাকায় চলে যাই। এ বিষয়েও নিকলী থানায় মামলা দায়ের করি।
এতো কিছুর পরেও গ্রাম্য সালিশ বৈঠকের মাধ্যমে আমাকে ঐ বাড়িতে স্থায়ীভাবে বসবাসের লক্ষ্যে শান্তনা দেওয়া হয়। সকলের আশ্বাসে আবারো শান্তিতে বসবাস করার লক্ষ্যে ঘরবাড়ী তৈরি করি। আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও ১৩ই মে-২০১০ইং মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে জমশেদ আলী প্রতিবাদ করায় আবারো আমাকে একলা বসবাসরত এই বাড়িতে শান্তিতে থাকতে চাইলে দুই লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে অপারগতা প্রকাশে আমার সাজানো সংসার অতীতের ন্যায় লণ্ডভণ্ড করে দেয়, লুটে নেয় সব কিছু। এ বিষয়েও ফৌজদারি আদালতে মামলা বিদ্যমান। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে উল্টা সাজানো মামলা দিয়ে স্বজনসহ আমাকে এ চক্রটি করেছে হয়রানি। শান্তির আশায় ক্ষণিক সময়ের বসবাস করলেও নিঃস্ব হয়ে প্রায় ৪০বছর যাবত বাড়ি ছাড়া বিভিন্ন জায়গায় যৌথ পরিবার নিয়ে ভাড়াটে থাকি। অসহায় হয়ে বর্তমানেও সরারচরের রেলগেইট সংলগ্ন এক বাড়িতে ভাড়াটে থাকি।
সাম্প্রতিক ইশাদ আলী আবারো মামলা উপেক্ষা করে বাড়ি দখল করে গাছ কাটে। আইনি প্রতিকার না পেয়ে দীর্ঘ প্রায় ৪০ বছরের কষ্ট সহ্য করতে না পেরে আমার ছেলে না, আমিই ইশাদ আলীকে কুপিয়েছি।
দিবালোকে সংঘটিত এই ঘটনায় রেলগেইট সংলগ্ন প্রত্যক্ষদর্শী এলাকাবাসী জানান, বাজিতপুর উপজেলার সরারচর রেলগেইট সংলগ্ন স্থানে একজন মাত্র ব্যক্তি কুপিয়ে আহত করেছে। আহত ব্যক্তিকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর অধিকতর রক্ত ক্ষরণের ফলে মারা যান। নিঃসংস্ব এই ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তির বিচার কাম্য। তবে শুনেছি খুনের ঘটনায় সাজানো মামলা দিয়ে ফাঁসিয়েছেন সংবাদ কর্মীসহ ১৫জনকে। একজনের খুনের দায়ে নিরপরাধ মানুষকে ফাঁসিয়ে দেয়া হবে এটা মানবাধিকার লঙ্ঘনের সামিল।
এই বিষয়ে জমশেদ আলী বলেন, মানুষ হত্যা করার অধিকার কারো নেই। প্রকৃত পক্ষে দিবালোকে শুনেছি একজন মাত্র ব্যক্তি এই ঘটনা ঘটিয়েছে অধিকতর তদন্তে দোষী ব্যক্তিকে আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবি করি। পাশাপাশি যারা নির্দোষ তাদের অব্যহতি প্রার্থনা করি।
এই খুনের ঘটনায় আমি কিছুই জানি না। বিভিন্ন সময়ে আমি এলাকার মাদক ব্যবসায়ী, চোর-ডাকাত ও বিভিন্ন অপরাধ মুলক কর্মকাণ্ডে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আমার ব্যক্তিগত ফেইসবুক একাউন্টে-Jamshad Banglanews, ফেইজ বুক পেইজ একাউন্ট JBANGLNEWS ও YouTube channel JBTVসহ আমার সম্পাদনায় অনলাইন পোর্টাল- www.jbanglanews.com এমনকি দৈনিক বাংলাদেশের খবরে প্রতিনিধি হিসাবে প্রতিবেদন প্রকাশ করাই আজ অপরাধীরদের চক্ষুশূল হয়েছি এর জের স্বরূপ ষড়যন্ত্রকারী মহল বাদীকে প্রলোভনে ফেলে আমাকে সাজানো মামলায় ফাঁসিয়ে দিয়েছে। খুনের ঘটনায় আমার কোন সংশ্লিষ্টতা নেই।
আমি সকাল থেকে নিয়ে বিকেল পর্যন্ত আমার নিজ বাসস্থান থেকে নিকলী উপজেলার সাতটি ইউনিয়নে জেলা পরিষদের সদস্য কর্তৃক ত্রাণের জন্য মোট ৩৮০টি প্যাকেট তৈরি করা হয় এর মধ্যে প্রতি চেয়ারম্যান কতটি পেয়েছেন বিতরণে নিয়ম-অনিয়মের বিষয়ে প্রতিবেদন তৈরিতে ব্যস্ত ছিলাম। আমার ব্যক্তিগত এই মুঠোফোন (০১৭১১৫১১১১৯) থেকে কথা বলার প্রমাণ পাওয়া যাবে এমনকি জেলা পরিষদের সদস্য জাকির হোসেন বাতেনের ব্যক্তিগত এই মুঠোফোনে(০১৭১৬-০৫০৫০৫) একাধিকবার ত্রাণের অনিয়মের বিষয়ে কথা বলারও রেকর্ড পাওয়া যাবে।
এক প্রশ্নের জবাবে এই প্রতিবেদককে বলেন, নিকলী উপজেলার অধীনস্থ সাতটি চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত মুঠোফোনে আমার কথা বলার প্রমাণ আছে। প্রশাসনের যাচাইয়ের লক্ষ্যে, ন্যায় বিচারের স্বার্থে প্রত্যেকের নাম, মূঠোফোন নাম্বার জানতে চাইঃ
কামরুল ইসলাম মানিক জারইতলা-০১৭২৬৭৯৯৯৩৮, নিকলী সদর, শাহরিয়ার তুলিপ-০১৭১৬৫১০৬৩৩, আবু তাহের দামপাড়া,০১৭৪৩৬৩২৫২৬, আনোয়ার হোসেন সিংপুর-০১৯১৩২৪৬০২৪, তাকি আমান খাঁন,কারপাশা-০১৭২১০৭৬২৬৩, জামাল উদ্দিন, ছাতিরচর-০১৯৮৪৭২৩৭৭৭, ও আবু তাহের, গুরই ০১৭১১৩১৮৩৭৫।
এছাড়াও কথা বলেছি বিভিন্ন গনমাধ্যম কর্মীদের সাথে যথাক্রমে, দিলীপ কুমার সাহা দৈনিক ইত্তেফাক নিকলী উপজেলা প্রতিনিধি-০১৭১৪০৯৩৮৪৪, আমাদের সময় সহ আরো অনেক জেলা প্রতিনিধিদের সাথে।

About nsompadok

মন্তব্য করুন