Breaking News
Home / অঞ্চলিক সংবাদ / আশুগঞ্জ বন্দরে রেলওয়ের জায়গা ইজারা নিয়ে দুইমন্ত্রনালয়ের মধ্যে বিরোধ, দুটানায় দুই ইজারাদার

আশুগঞ্জ বন্দরে রেলওয়ের জায়গা ইজারা নিয়ে দুইমন্ত্রনালয়ের মধ্যে বিরোধ, দুটানায় দুই ইজারাদার


ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:- ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ বন্দরে বিওসিঘাট এলাকায় রেলওয়ের জায়গা ইজারা নিয়ে দুইমন্ত্রনালয়ের মধ্যে বিরোধ দেখা দেওয়ায় দুই দফা ঘটনাস্থল বিওসিঘাট এলাকায় এসেও রেল কর্তৃপক্ষ ইজারা প্রাপ্ত আসিফুর রহমানকে ইজারকৃত জায়গা বুঝিয়ে দিতে রেননি,বিআইডবিটি এর বাধা দেয়ার কারণে।এ নিয়ে দুটানায় দুই ইজারাদার। রেলওয়ে স্টেট ডিপার্টমেন্ট সুত্র জানায়,দীর্ঘদিন ধরে আশুগঞ্জ বন্দরে বিওসিঘাট এলাকায় রেলওয়ের জায়গা ইজারা দেওয়ার চেষ্টা করে আসছিলেন।অনেক চেষ্টার পরও কোন লোক ইজারা নেওয়ার জন্য আবেদন না করায় রেল কর্তৃপক্ষ আশুগঞ্জের বিওসিঘাট এলাকা রেলের জায়গা ইজারা দিতে পারেননি।২০২০ সালে আশুগঞ্জ বন্দরে বিওসিঘাট এলাকায় রেলওয়ের জায়গা ইজারা উদ্যোগ নিয়ে টেন্ডার আহবান করা হয়এটন্ডার মোতাবেক আশুগঞ্জে আসিফুর রহমান নামে এক লোক ইজারা পায় গত ২০.০৬.২০২০ তারেিখ।টেন্ডার মোতাবেক ইজারা বুঝিয়ে দেওয়ার গত সেপ্টেম্বর ও বৃহস্পতিবার ৮ অক্টোবর আশুগঞ্জ বিওসিঘাট এলাকায় আসলে বিআইডবিøউিটিএর কর্তৃপক্ষ বাধা দেওয়ার কারণে ইজারাকৃত জায়গা আসিফুর রহমানকে বুঝিয়ে দেওয়া সম্ভব হয়নি।পরবর্তীতে নৌমন্ত্রনালয় এবং রেল মন্ত্রনালয় একসাথে বসে সিদ্ধান্ত নিয়ে পরবতী কার্যক্রম পরিচালিত হবে বলে রেল ভুসম্পদ বিভাগের কাননগো মো.ইকবাল হোসেন জানান। ইজারা প্রাপ্ত আসিফুর রহমান বলেন,সিএস এবং আরএস অনুযায়ী এই জায়গা রেলের এবং আমি বৈধভাবে টেন্ডারের মাধ্যমে বিওসিঘাট এলাকা ইজারা পেয়েছি।বিআইডবিøউিটিএ এখানে এসে কোন কারণ ছাড়াই ঝামেলা করছে ।আমি চাই কর্তৃপক্ষ দ্রæত আমার ইজারাকৃত জায়গা আমাকে বুঝিয়ে দেওয়া হোক। আমি শান্তিপুর্নভাবে আমার ইজারা বুঝে পেতে চাই। এদিকে লঞ্চঘাট ইজহারদার ইমরান মোল্লা বলেন,গত ১৯৭৫ সালথেকে লঞ্চঘাট ইজারার মাধ্যমে বিওসিঘাট পর্যন্ত আইন মোতাবেক শুল্ক আদায় করে আসছে।হঠাৎ করে রেল কি করে এই জায়গা নতুনভাবে ইজারাদেয় এটা আমার বুঝে আসছে না।তারপরও দুইমন্ত্রনালয় বসে যে সিদ্ধান্ত দেবে তা আমি মেনে নিব।

About জানাও.কম

মন্তব্য করুন